• A
  • A
  • A
গোষ্ঠীকোন্দল, তোলাবাজি প্রভাব ফেলবে নির্বাচনে; নবান্নে রিপোর্ট

শিলিগুড়ি, ১৭ এপ্রিল : একে তো বিক্ষুব্ধ "তৃণমূল-কাঁটা" আটকাতে হিমসিম খাচ্ছে দল। দোসর গোয়েন্দা রিপোর্ট। যা পৌঁছেছে নবান্নে। রিপোর্ট বলছে, দুই মন্ত্রীর কোন্দলে পঞ্চায়েত নির্বাচনে জলপাইগুড়ির রাজগঞ্জে একই আসনে দাঁড়িয়েছে একাধিক প্রার্থী। আর এই রিপোর্ট সামনে আসতেই অস্বস্তি বেড়েছে। বেড়েছে দল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কাও।


সূত্রের খবর, পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফল কী হতে পারে তা নিয়ে গোয়েন্দা বিভাগের তরফে নবান্নে একটি রিপোর্ট পাঠানো হয়েছে। তাতে স্পষ্ট, জেলাস্তরে গৌতম দেব অনুগামীরা, অরূপ বিশ্বাস অনুগামীদের দ্বারা বাধাপ্রাপ্ত হচ্ছেন। অরূপ অনুগামীদের সহযোগিতা করছেন রঞ্জন সরকার ও কৃষ্ণচন্দ্র পাল নামে স্থানীয় দুই নেতা। তাঁদের পিছন থেকে ‘সাহায্য’ করছেন SJDA চেয়ারম্যান সৌরভ চক্রবর্তী ও উত্তরবঙ্গ উন্নয়নমন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।


এই সংক্রান্ত আরও খবর : জলপাইগুড়িতে এক আসনে তৃণমূলের হয়ে মনোনয়ন দুই নেতার

রিপোর্টে আরও জানানো হয়েছে, দলের নেতাদের একাংশ ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি এলাকায় জমির বেআইনি কারবারের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছেন। যার ফলে এলাকার বাসিন্দাদের মনে বিরূপ প্রভাব পড়ছে। কারণ, জমির সঠিক দাম না পেয়ে তারা নিজেদের প্রতারিত বলে মনে করছে। রিপোর্ট অনুযায়ী, তৃণমূল নেতা রঞ্জন সরকার ও কৃষ্ণচন্দ্র পাল জমি মাফিয়াদের নিয়ন্ত্রণ করে। আর জমি বিক্রির বেশিরভাগটাই নিয়ন্ত্রণ করে জমি মাফিয়ারা।

রিপোর্টে উল্লেখ রয়েছে, ফুলবাড়ি জেলা পরিষদ আসনের প্রার্থী তথা ব্লক তৃণমূল সভাপতি দেবাশিস প্রামাণিক ‘তোলাবাজি’র সঙ্গেও জড়িত। ফুলবাড়ির উপর দিয়ে বাংলাদেশের পথে যাওয়া বোল্ডারবোঝাই ট্রাক থেকে প্রকাশ্যে “প্রোটেকশন মানি” তোলেন। তা স্থানীয়দের আরও ক্ষুব্ধ করে তুলছে।

এই সংক্রান্ত আরও খবর : ডাবগ্রাম-ফুলবাড়িতে বিক্ষুব্ধদের সামলাতে নাজেহাল তৃণমূল

গোয়েন্দা বিভাগের রিপোর্ট ইতিমধ্যে নবান্নে পৌঁছেছে। অস্বস্তি বেড়েছে দলীয় নেতৃত্বের। এবিষয়ে গৌতম দেবের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “আপনার কাছে কী রিপোর্ট আছে তা নিয়ে মন্তব্য করব না। আমি সরকারের একজন মন্ত্রী। তাই, এসব নিয়ে আমার কোনও প্রতিক্রিয়া নেই।” জলপাইগুড়ি জেলা তৃণমূল সভাপতি সৌরভ চক্রবর্তী বলেন, “ভিত্তিহীন রিপোর্ট। ডাবগ্রাম-ফুলবাড়ি এলাকার সব আসনের প্রার্থী ব্লক সভাপতি দেবাশিস প্রামাণিকরা বেছেছেন। আমি দু-একজনকে প্রার্থী করতে অনুরোধ করেছিলাম। ওঁরা করেননি। আমরা কোথায় বাধা দিলাম ? ওঁদের হাতেই এলাকার যাবতীয় আসনের দায়িত্ব তুলে দেওয়া হয়েছে।”

এই সংক্রান্ত আরও খবর : প্রয়োজনে বিক্ষুব্ধ তৃণমূল প্রার্থীদের সমর্থন দিন : অশোক ভট্টাচার্য

নিজের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগ অস্বীকার করেছেন দেবাশিস। তিনি বলেন, “বোল্ডারবোঝাই ট্রাক থেকে টাকা তোলার অভিযোগ ঠিক নয়। গোয়েন্দাবিভাগ কী রিপোর্ট দিয়েছে জানি না। আমি এসবের সঙ্গে জড়িত নই।” গোটা বিষয়টি নিয়ে অরূপ বিশ্বাস ও রবীন্দ্রনাথ ঘোষের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

তাঁদের বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রঞ্জন সরকার ও কৃষ্ণচন্দ্র পাল। জমির কারবারের সঙ্গে কোনওভাবেই জড়িত নয়, জানিয়েছেন তাঁরা।

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES