• A
  • A
  • A
দোষ প্রমাণিত হলে গ্রেপ্তার করা উচিত, সৌম্যজিৎ প্রসঙ্গে মন্তব্য প্রাক্তন পুলিশকর্তার

কলকাতা, ১২ মার্চ : সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে একটি বিতর্কিত অডিও ক্লিপ। তাতে নাকি শোনা গিয়েছে দার্জিলিং সদর থানার IC সৌম্যজিৎ রায় অশ্লীল ভাষায় হুমকি দিচ্ছেন এক মোর্চা সমর্থককে। অডিও ক্লিপটি সামনে আসার পরেই বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব থেকে আইনজীবী, প্রাক্তন পুলিশ কর্তা সহ অনেকেই। কেউ বলেছেন “গণতন্ত্রের সার্বিক অবক্ষয়।” কেউ আবার বলেছেন, “ওই IC-র জেলে যাওয়া উচিত।” যদিও অডিও ক্লিপিংসে IC-র মুখে যে কথাগুলি শোনা গিয়েছে, তা আদৌ তাঁর কথা কিনা, তা তদন্তসাপেক্ষ।

প্রাক্তন IG পঙ্কজ দত্ত


যে অডিও ক্লিপটি সামনে এসেছে তাতে অচ্যুতম ভট্টরাই নামে এক মোর্চা সমর্থককে নাকি হুমকি দিচ্ছেন IC সৌম্যজিৎ রায়। ক্লিপটিতে IC-কে নাকি বলতে শোনা যাচ্ছে, “সবাই যোগ দিচ্ছে, মানুষের কাজ দরকার, লোকজন সিভিক পুলিশে জয়েন করছে। আপনার কী অসুবিধা?” সম্ভবত ওই মোর্চা সমর্থক সাধারণ মানুষকে কাজে যোগ দিতে বাধা দিচ্ছিলেন। আর তাতেই পুলিশের এই হুমকি। কিন্তু মোর্চা সমর্থককে হুমকি দিতে গিয়ে অডিও ক্লিপে IC-র মুখে যে ভাষা শোনা গিয়েছে, তা ভদ্রসমাজের গ্রহণযোগ্য নয়। অডিও ক্লিপটিতে সৌম্যজিৎবাবুর মুখে শোনা গিয়েছে, “তুমহারা বহেনকো ... ভি সকতা হ্যায়। তুমহারা মাকো ভি... সকতা হ্যায়। তুমহারা ঘর জ্বলা দেঙ্গে।” সোশাল মিডিয়ায় এখন ভাইরাল এই অডিও ক্লিপ।


এবিষয়ে দার্জিলঙের পুলিশ সুপার অখিলেশ চতুর্বেদীর প্রতিক্রিয়া জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “সংশ্লিষ্ট অডিও ক্লিপটি সোশাল মিডিয়ায় ঘুরছে। তবে এনিয়ে কেউ অভিযোগ করেননি। অভিযোগ করলে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। দেখা হবে সৌম্যজিৎ রায়ের ভূমিকা।”


সৌম্যজিৎ রায় (ছবি সৌজন্য : ফেসবুক)

পুলিশ সুপারের এই প্রতিক্রিয়া নিয়ে প্রশ্ন তোলেন প্রাক্তন IG পঙ্কজ দত্ত। বলেন, “এটা যদি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীর সম্পর্কে বলা হত, কিংবা প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে বলা হত তাহলে কি রাজ্য পুলিশ চুপচাপ বসে থাকত ? সঙ্গে সঙ্গে তাঁরা এই অডিও ক্লিপের সত্যতা যাচাই করার চেষ্টা করতো। তারপর দোষীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হত। এমনিতেই দার্জিলিং সমস্যা জর্জরিত। তারপর যদি এমন কথাবার্তা শোনা যায়, তবে তা ভস্মে ঘি ঢালবে। দার্জিলিঙে এই মুহূর্তে শান্তি রয়েছে। সেখানে কাল শিল্প সম্মেলন হবে। নামীদামি শিল্পপতিরা আসবেন। সেসময় যদি এই রকম ঘটনা ঘটে তবে সিরিয়াস রিপারকেশন হবে দার্জিলিঙে আইনশৃঙ্খলার ক্ষেত্রে, শিল্পায়নের ক্ষেত্রে। আমি বলব পুলিশকে অবিলম্বে বিষয়টি নিয়ে ভাবতে হবে। যদি এই অডিও ক্লিপ নকল হয় তবে কে এমন কাণ্ড ঘটালো তা দেখতে হবে। তার বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে। আর যদি অডিও ক্লিপের সত্যতা প্রমাণিত হয়. তবে অবিলম্বে ব্যবস্থা নিতে হবে IC-র বিরুদ্ধে।”

CPI(M) নেতা সুজন চক্রবর্তী বলেন, “অপরাধীদের ভাষা বলছে পুলিশ। পুলিশ-প্রশাসনের যারা মাথা অর্থাৎ শান্তিশৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব যাদের, তারা বুঝে গেছে প্রশাসন আসলে অপরাধীদের জন্য। ফলে অপরাধীদের ভাষা রপ্ত করছে।”

আগের খবর : চন্দননগরের মালের পর এবার দার্জিলিঙের ঢাল, মা-বোনকে ধর্ষণের হুমকি পুলিশের মুখে ?

মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করেন আইনজীবী অরুণাভ ঘোষ। বলেন, “উনি খুব ভালো ভাষায় কথা বলেছেন। আমাদের সব বাচ্চাদের ওই ভাষা শেখানো উচিত। ওটা মমতা ব্যানার্জির গীতার ভাষা। ওই IC-কে নিশ্চই পুরস্কার দেবেন মুখ্যমন্ত্রী। আইন প্রয়োগ করার দায়িত্ব পুলিশের, সরকারের। ওরা তো সেটা করবে না। এটা আমাদের পশ্চিমবঙ্গের ভবিতব্য।”

প্রাক্তন মুখ্যসচিব অর্ধেন্দু সেন বলেন, “এই ঘটনা প্রশাসনের সামগ্রিক অবক্ষয়ের একটা অংশ।”


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  পুজোর খবর

  MAJOR CITIES