• A
  • A
  • A
মঞ্চেই ধর্মান্তরণ, সাংবাদিকদের মার হিন্দু সংহতি কর্মীদের; গ্রেপ্তার তপন ঘোষ

কলকাতা, ১৪ ফেব্রুয়ারি : সাংবাদিকদের মারধরের অভিযোগ উঠল হিন্দু সংহতি কর্মীদের বিরুদ্ধে। এই ঘটনায় দুঃখপ্রকাশ করেন হিন্দু সংহতির আহ্বায়ক তপন ঘোষ। সেইসঙ্গে তাঁর অভিযোগ, বেশ কয়েকটি মিডিয়া হিন্দু জাগরণকে নষ্ট করে দেওয়ার চেষ্টা করছে। এদিকে, হেয়ার থানার পুলিশ তপন ঘোষকে গ্রেপ্তার করেছে বলে খবর।

তপন ঘোষের বক্তব্য


আজ রানি রাসমণি রোডে সমাবেশ ছিল হিন্দু সংহতির। সেখানে শিয়ালদা স্টেশনের নাম পরিবর্তন করে ড.শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জি টার্মিনাস রাখার দাবি তোলা হয়। এরপর ওই মঞ্চে একই পরিবারের ১৪ জনের ধর্মান্তরণ করা হয়। পরে মঞ্চ থেকে নেমে আসেন ধর্মান্তিরতরা। নিচেই দাঁড়িয়ে ছিলেন সাংবাদিকরা। তাঁরা প্রশ্ন করতে শুরু করলে হিন্দু সংহতি কর্মীরা প্রথমে বাধা দেন। পরে সাংবাদিকদের মারধর করা হয়। এক সাংবাদিকদের কপাল ফেটে যায়। ভাঙে চশমা। পরে অবশ্য পুলিশ পরিস্থিতি সামাল দেয়।


ঘটনাটি অনভিপ্রেত বলে মন্তব্য করেন তপন ঘোষ। বলেন, “আমি দুঃখিত। এক সাংবাদিকের কপালে লেগেছে। চশমাটাও ভেঙে গেছে। এটা একেবারেই অনুচিত। আমি ব্যক্তিগত ভাবে ওনার কাছে ক্ষমা চাইছি। কিন্তু, এটাও জানাচ্ছি একটি সংবাদমাধ্যমের সাংবাদিকরা উত্তেজিত করেছিল। আমাদের একটি মেয়েকে বলছিল, “বলো তোমাদের জোর করে আনা হয়েছে।” এটা শুনে আমাদের কয়েকজন কর্মী উত্তেজিত হয়। সাংবাদিকদের বাধা দেয়। সেখানে ধস্তাধস্তি হয়। বাধা দেওয়াটা উচিত হয়নি। তবে, এখানকার সংবাদমাধ্যম বামপন্থী ঘেঁষা। হালে পানি পাচ্ছে না বলে হিন্দু জাগরণকে নষ্ট করে দেওয়ার চেষ্টা করছে। এর জন্য উত্তেজনা তৈরি করছে। এটা পরিকল্পনামাফিক হয়েছে।”



সাংবাদিকের উপর হামলার কড়া নিন্দা করা হয় প্রেস ক্লাবের পক্ষ থেকে। ঘটনার নিন্দা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। অপরাধীদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন তিনি। এরপর আজ সন্ধ্যাবেলা তপন ঘোষকে গ্রেপ্তার করে হেয়ার স্ট্রিট পুলিশ। এছাড়া ঋষিকেশ রায় (মালদা), তপন শীল (মালদা) ও প্রীতম শীল (বাদুড়িয়া) নামে তিন কর্মীকেও গ্রেপ্তার করা হয়েছে।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  পুজোর খবর

  MAJOR CITIES