• A
  • A
  • A
সরকারি লজে রমরমিয়ে দেহব্যবসা, ধরা পড়ল ক্যামেরায়

ক্যানিং, ১ ডিসেম্বর : সরকারি লজ। সুযোগ-সুবিধাও মন্দ নয়। আর পাঁচটা হোটেলের থেকে ভাড়া কিছুটা বেশি হলেও সরকারের নিজস্ব লজ হওয়ায় 'তারা' নিশ্চিত থাকত যে পুলিশ হানা দেবে না। এড়ানো যাবে যে কোনও ঝঞ্ঝাট। আর সেই সুযোগকেই কাজে লাগিয়ে ক্যানিং মহকুমাশাসকের দপ্তরের ঠিক পাশেই "পথের সাথী" লজে রমরমিয়ে চলছে দেহব্যবসা। অভিযোগ, প্রশাসনের নাকের ডগায় দিনের পর দিন চলছে এই দেহব্যবসা। তা সত্ত্বেও হেলদোল নেই প্রশাসনের।


মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পর্যটন ব্যবসার উপর জোর দিয়েছেন। তাই রাজ্য সরকারের উদ্যোগে বিভিন্ন পর্যটনস্থলের কাছে রাত্রিবাসের জন্য পথের সাথী নামে বহু সরকারি লজও বানানো হয়েছে। তেমনই একটি ক্যানিং মহকুমাশাসকের দপ্তরের পাশের এই লজটি। সুন্দরবনের পর্যটকদের থাকার সুবিধার কথা মাথায় রেখে এটি তৈরি করা হয়। কিন্তু, ক্রমশ লজটি দেহব্যবসার আস্তাকুঁড় হয়ে উঠছিল। বেশ কয়েকদিন ধরে অভিযোগ উঠছিল, দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার বিভিন্ন জায়গা থেকে পুরুষ ও মহিলারা এই সরকারি লজে আসে। ঘণ্টাভিত্তিক চুক্তিতে ঘরভাড়া নিয়ে থাকে। আবার চলে যায়। অভিযোগের সত্যতা যাচাই করতে লজটিতে যান ইনাডু বাংলার প্রতিনিধি।
পথের সাথী আর পাঁচটা লজের মতই। কিন্তু, লজের ম্যানেজার তনুময় পান্ডাকে চেপে ধরতেই বেরিয়ে আসে সত্যিটা। গোটা তিনেক ঘরে টোকা দিতেই ক্যামেরাতে অসংলগ্ন অবস্থায় ধরা পড়ে বেশ কয়েকজন যুবক-যুবতি। তাদের জিজ্ঞাসা করা হয়, কোথা থেকে এসেছে? কী কারণে সেখানে এসেছে? কার্যত মুখ বাঁচিয়ে সেখান থেকে পালায় তারা। এক যুবতি বলে, "আমরা কয়েকজন বন্ধুবান্ধব মিলে এসেছি এখানে। কিছুক্ষণ থেকে চলে যাব।" যদিও সেই ঘরে দেখা মেলেনি আর কোনও তৃতীয় ব্যক্তির। কোথা থেকে এসেছে জানতে চাইলে বেশ খানিকটা ভেবে অপ্রস্তুত যুবতির জবাব, "চম্পাহাটি থেকে।"


লজের ম্যানেজারও ক্যামেরার সামনে কার্যত দেহব্যবসা চলার বিষয়টি স্বীকার করে নেয়। একের পর এক প্রশ্নের মুখে পড়ে তার জবাব, "আমি মাস ছয়েক-আটেক আগে এখানে এসেছি।" শেষে SDO-র সঙ্গে কথা বলবে বলে পালানোর চেষ্টা করে সে।

যদিও এলাকাবাসীদের অভিযোগ, ছ'মাস বা আট মাস নয়। লজের আড়ালে আরও বেশিদিন ধরেই এই অসামাজিক কাজকর্ম চলছে। পুলিশ-প্রশাসনের মদতেই এই ব্যবসা চলছে বলে অভিযোগ তাদের। জানা গেছে, লজটি সরকারি হলেও বর্তমানে একটি এজেন্সির মাধ্যমে মহকুমা প্রশাসন এটি চালায়। কিন্তু, প্রশ্ন উঠছে, লিজ নেওয়া সেই এজেন্সিই কি বেশি মুনাফার লোভে দেহব্যবসার জাল ফেঁদেছে ?

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES