• A
  • A
  • A
মালদায় উদ্ধার ৯ লাখ টাকার জালনোট, ধৃত তৃণমূল কর্মী

মালদা, ৯ ফেব্রুয়ারি : পুলিশকে অন্ধকারে রেখে BSF-র সহযোগিতায় মালদায় বিপুল পরিমাণ জালনোট উদ্ধার করল ন্যাশনাল ইনভেস্টিগেশন এজেন্সি (NIA)। একইসঙ্গে তারা এক ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে কলকাতা নিয়ে গেল। গতকাল মাঝরাতে BSF ও NIA-র দলটি বৈষ্ণবনগর থানার বাখরাবাদ গ্রাম পঞ্চায়েতের দৌলতপুর গ্রাম থেকে জালনোট সহ ওই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করে। ধৃত ব্যক্তির নাম হবিবুর রহমান ওরফে হাবিব (৪৫)। সে তৃণমূলের সক্রিয় কর্মী। আজ কলকাতায় ব্যাঙ্কশাল কোর্টে তোলা হয় তাকে।

উদ্ধার হওয়া জালনোট


বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত দুটো নাগাদ দিল্লি থেকে NIA-র একটি দল আসে। তারপর ২৪ ব্যাটেলিয়ন BSF-র আধিকারিক ও জওয়ানদের নিয়ে দৌলতপুর গ্রামে হানা দেয়। খবর ছিল, ওই গ্রামের বাসিন্দা হবিবুর রহমান ওরফে হাবিব জালনোট পাচারচক্রের প্রধান পান্ডা। দৌলতপুর গ্রামে সে কয়েক বছর আগে বাড়ি বানিয়েছে। তার আরেকটি বাড়ি আছে বাংলাদেশের ভারতীয় ভূখণ্ডে। এই খবরের ভিত্তিতে গতকাল মাঝরাতে হানা দেয় NIA ও BSF।


বাড়ির পাশে লুকিয়ে ছিল হাবিব। রাত ৩টে নাগাদ জওয়ানদের সহযোগিতায় তাকে ধরে ফেলে NIA। বাড়িতে তল্লাশি চালিয়ে NIA আধিকারিকরা ৮ লাখ ৯৮ হাজার টাকার জালনোট উদ্ধার করেছে। তারমধ্যে ছিল ৪০০টি দু’হাজার টাকা ও ১৯৬টি পাঁচশো টাকার নোট।

হাবিব দীর্ঘদিন ধরেই রাজনৈতিক দলের সঙ্গে যুক্ত। আগে CPI(M) কর্মী হিসেবে এলাকায় পরিচিত ছিল। সে ছিল তৎকালীন স্থানীয় CPI(M) বিধায়ক বিশ্বনাথ ঘোষের ছায়াসঙ্গী। রাজ্যে ক্ষমতাবদলের পর সে এখন তৃণমূল কর্মী। সেকথা স্বীকার করে নিয়েছেন বিশ্বনাথবাবুও। হাবিবকে নিজেদের দলের সক্রিয় কর্মী হিসাবে স্বীকার করেছেন জেলা তৃণমূল সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেনও। তিনি জানান, আজ সকালে হাবিবের পরিবারের সদস্যরা তাঁর কাছে আসে। তারাই তাঁকে জানায়, NIA গতকাল রাতে হাবিবকে গ্রেপ্তার করেছে। কিন্তু তার কাছে কোনও জালনোট ছিল না। তাকে ফাঁসিয়ে দেওয়া হয়েছে। BSF-র সঙ্গে কথা বলেছেন জেলা তৃণমূল সভাপতি। তিনি জানান, হাবিব দোষী হলে শাস্তি হবে। আইন আইনের পথেই চলবে।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  জনমত পঞ্চমত ২০১৮

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  MAJOR CITIES