• A
  • A
  • A
উনি লেখাপড়ার কী বোঝেন ? পার্থকে আক্রমণ আনন্দদেব মুখোপাধ্যায়ের

কলকাতা, ৬ জুলাই : "শিক্ষামন্ত্রীর প্ররোচনাতেই বন্ধ করা হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশিকা। এটা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধিকারে হস্তক্ষেপ করা হচ্ছে। উনি শিক্ষার কিছুই বোঝেন না।" পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের উদ্দেশে এই কথা বললেন বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য আনন্দদেব মুখোপাধ্যায়। তিনি যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন অধ্যাপকও। তবে সরাসরি না বললেও এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অশোকনাথ বসুর গলাতেও একই সুর শোনা গিয়েছে।


কলা বিভাগের ছ'টি বিষয়ে প্রবেশিকা পরীক্ষা তুলে দেওয়ার সিদ্ধান্তের বিরোধিতায় বিক্ষোভ দেখিয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের পড়ুয়ারা। তাদের পাশাপাশি অবস্থান করছে শিক্ষক সংগঠন JUTA-ও। আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়েছেন প্রাক্তনীরাও। এর মাঝেই আজ JUTA-র অবস্থানে সামিল হন বেশ কয়েকজন শিক্ষাবিদ। যাঁদের অনেকেই আবার NAAC (National Assessment and Accreditation Council)-এর সদস‍্য। যেমন অশোকনাথ বসু। কলেজের শিক্ষার মান যাচাই করার জন্য NAAC-এর কমিটির চেয়ারম্যান তিনি। আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে তিনি বলেন, "যদি শিক্ষার মান উন্নয়নের জন্য এ ধরনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হত, তাহলে কিছু বলার ছিল না। কিন্তু, এটা পুরোপুরি রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। এর ফল বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য খুবই খারাপ হবে। আমরা NAAC-এর পক্ষ থেকে ভারতবর্ষের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার গুণমান যাচাই করি। সেই গুণমান ধরে রাখতে গিয়ে যদি কোনও বিশ্ববিদ্যালয় কয়েকটি বিষয়ে প্রবেশিকা নিয়ে ভরতি করে, সেটা তাদের স্বাধিকারের জায়গা। এতে হস্তক্ষেপ করা হলে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার যে গুণমান তা পড়ে যাবে।" শিক্ষামন্ত্রীকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, "শিক্ষামন্ত্রী অবশ্যই হস্তক্ষেপ করতে পারেন। কিন্তু, এক্ষেত্রে শিক্ষামন্ত্রী হস্তক্ষেপ করছেন বিরোধিতার জায়গায় দাঁড়িয়ে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক-অধ্যাপিকারা দীর্ঘদিন ধরে যে পরিকল্পনা করে আসছেন, শিক্ষামন্ত্রী তার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। এই যুদ্ধে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের জয়ী হওয়া দরকার।"
অধ‍্যাপক আনন্দদেব মুখোপাধ্যায়
অধ‍্যাপক আনন্দদেব মুখোপাধ্যায় পড়াশোনা করেছেন যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়। তারপর সেখানে অধ্যাপনাও করেছেন। পরে বিদ্যাসাগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যর দায়িত্ব পালন করে এখন NAAC-এর কমিটির সদস‍্য। আজ ইনাডু বাংলার ক্যামেরার সামনে রীতিমত চাঁচাছোলা ভাষায় শিক্ষামন্ত্রীকে আক্রমণ করে বলেন, "উনি বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধিকার নষ্ট করছেন। উনি বোধহয় জানেন না, প্রশাসনে যাঁরা আসবেন তাঁদের ধর্ম বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বাধিকার রক্ষা করা। উনি বলছেন টাকা দিচ্ছেন। এটা ওনার টাকা ? ওটা আমার টাকা, আপনার টাকা। উনি যে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়কে নষ্ট করার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন, তাঁর কী অধিকার আছে ? শিক্ষামন্ত্রী বলবেন, এখানে শুধু আন্দোলন হয় লেখাপড়া হয় না? উনি লেখাপড়ার কী বোঝেন? উনি যদি বুঝতেন তাহলে বলতেন না যে বিশ্ববিদ্যালয়ে জব ওরিয়েন্টেড সিলেবাস করা হবে। শিক্ষামন্ত্রী শিক্ষা বুঝলে কখনও বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক অটোনমির ব্যাপারে কিছু বলতেন না। তাঁর ব্যক্তিগত বক্তব্য অন্য জায়গাতে বলবেন। শিক্ষামন্ত্রী হিসেবে নয়। যাদবপুর যে বিশ্বমানের হয়েছে তা লেখাপড়ার উপরে ভর করে। উনি লেখাপড়ার কিছু বোঝেন না বলেই এসব বলছেন।"

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  জনমত পঞ্চমত ২০১৮

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  MAJOR CITIES