• A
  • A
  • A
গোরুপাচার বন্ধ করেছিলাম, তাই আমার উপর আক্রমণ : ভারতী ঘোষ

কলকাতা, ১০ ফেব্রুয়ারি : স্বামীর ফ্ল্যাটে তল্লাশি ও গতকাল তাঁর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা (Arrest Warrant) জারি হওয়ার পর পালটা আক্রমণের রাস্তায় এগোলেন পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষ। একটি অডিওবার্তা প্রকাশ করে তিনি অভিযোগ জানান, এক আন্তর্জাতিক গোরু পাচারচক্র এই সবকিছুর পিছনে আছে। পাচারচক্রের মূল পাণ্ডা ইউনিস আলি মণ্ডলকে দিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যে মামলা করানো হয়েছে। কারণ এই গোরুপাচারের সঙ্গে বেশ কয়েকজন নেতানেত্রী, পুলিশকর্মী ও আধিকারিক যুক্ত। তাঁদের অসুবিধা হচ্ছিল। তাই মিথ্যে মামলায় ফাঁসানো হয়েছে তাঁকে। অভিযোগ ভারতী ঘোষের। আজ অডিওবার্তায় তিনি বলেন, “শাসকদল তার সমস্ত রাষ্ট্রশক্তি আমার পিছনে লাগিয়ে দিয়েছে। কিন্তু, আমি হার মানব না। উচ্চতর আদালতে যাব। দেখা হবে আদালতে।”

ভিডিওয় শুনুন অডিওবার্তা


অডিওবার্তায় ভারতী আরও বলেন, “ইউনিস আলি মণ্ডল আন্তর্জাতিক গোরু পাচারকারী। সবাই জানে। বাদুড়িয়া জানে, বসিরহাট জানে। ও বাংলাদেশ বর্ডার দিয়ে গোরুপাচার করে। বহু পুলিশ অফিসার যুক্ত এর সঙ্গে। বহু রাজনৈতিক নেতানেত্ৰী যুক্ত। আমি সব জানি। তাই, আজ আমার মুখ বন্ধ করার চেষ্টা হচ্ছে। কয়েকমাস আগেও আমার নামে সে একটি মিথ্যা মামলা করে হাইকোর্টে। তার কারণ, পশ্চিম মেদিনীপুর ও ঝাড়গ্রামের উপর দিয়ে তার যে গোরু যেত তা আমি বন্ধ করে দিয়েছিলাম। ওর সহযোগীকে মেদিনীপুর পুলিশ গ্রেপ্তারও করেছিল। আমার বিরুদ্ধে যে মিথ্যা মামলা করেছিল তা আগেই খারিজ হয়ে যায়। আজ সেই গোরু পাচারকারীকে ডেকে একই বিষয়ে CID কেস করিয়েছে। আপনারা শুনলে আশ্চর্য হবেন, পুলিশ এখন আন্তর্জাতিক গোরু পাচারকারীকে ডেকে এনে কেস করাচ্ছে। তার সঙ্গে ডিল করছে। বলছে, তোর গোরু চলবে। তার বদলে কেস কর। ভেবেছেন আমি কিছু জানি না। কিছু বুঝি না। আমি উচ্চতর আদালতে যাব। আমি বাংলার মানুষকে বলছি, আপনারা দেখুন। মিডিয়াকে কিন্তু মিসগাইড করছে। মিডিয়াকে মিথ্যা কথা বলছে। যা তথ্য দিচ্ছে সমস্ত মিথ্যা।”


CID-র কাছে বেশ কয়েকটি প্রশ্নও করেছেন ভারতী ঘোষ। চোখ বোলানো যাক সেই প্রশ্নগুলিতে


আমি ভারতী বলছি। আমি CID-কে কিছু প্রশ্ন করছি। এবং চাইছি, বাংলার মানুষ ও ভারতবর্ষের মানুষ সবাই শুনুক আমার প্রশ্নগুলি কী কী ?

প্রথম প্রশ্ন

CID- তুমি তোমার ইতিহাসের দিকে তাকাও। একটা কেসের উদাহরণ দিয়ে বলো, যেখানে FIR হওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যে মাঝরাতে তোমরা একজনের বাড়িতে রেড করেছ। যার নাম FIR-এ নেই। তাও ৭৫-১০০ জন অফিসার নিয়ে। ইতিহাস ঘেঁটে এমন একটা কেস বের করতে পারবে ?

দ্বিতীয় প্রশ্ন

যে কেসটা নিয়ে এত চেঁচামেচি সেই দাসপুর PS কেসের FIR-এ আমার নাম নেই। তবুও FIR হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমার স্বামীর বাড়িতে রেড হয়ে গেল। CID কি আজকাল ম্যাজিক চর্চা করছে ? CID কি ম্যাজিক জানে যে কয়েক মিনিটের মধ্যেই জেনে গেল যে আমার স্বামী দোষী আর আমি দোষী। আর আমাদের বাড়িতেই রেড করতে হবে ?

তৃতীয় প্রশ্ন

এই কেসে CID আধিকারিক বলেছেন, “আমরা খবর পেয়েছি ১২ জায়গায় তল্লাশি করতে হবে।” এই ১২ জায়গার খবর কোথা থেকে পেলেন আপনি ? ১২ জায়গার খবর তো FIR-এ নেই। FIR হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই তো আপনার CID টিম বেরিয়ে গেল রেড করার জন্যে। তাহলে আপনাকে এই ১২ জায়গার খবর কে দিল এবং কখন দিল ? কীভাবে পেলেন খবর ?

চতুর্থ প্রশ্ন

FIR হওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই ৭৫-১০০ জন অফিসার ৭ থেকে ৮টা টিমে বেরিয়ে গিয়ে রেড করেছে। তাহলে কি আপনারা আগে থেকে থেকেই জানতেন যে এই FIR-টা হবে ? এবং আপনাদেরকে রেড করতে হবে ? তাই আপনারা সেভাবেই প্রস্তুত ছিলেন এবং কোথায় কোথায় রেড করতে হবে তা আপনারা আগে থেকেই ঠিক করে নিয়েছিলেন ?

পঞ্চম প্রশ্ন

রেড করার সময় IG (CID), SP (CID) আমার স্বামীর বাড়িতে এসেছিলেন। আমাকে সবাই চেনেন। বাড়ির দেওয়ালে ইউনিফর্ম পরা প্রচুর ছবি রয়েছে। রাষ্ট্রসংঘের ছবিও রয়েছে সেখানে। সেগুলি আপনারা ভেঙেছেন। এবং আমার ও স্বামীর বাড়ির দলিল, জমির দলিল বাজেয়াপ্ত করেছেন। সব দলিলে আমার নাম রয়েছে। দেওয়ালে আমার ছবি রয়েছে। কিন্তু, পরে আপনারা আপনাদের সরকারি বিবৃতিতে জানালেন যে কার বাড়িতে রেড হয়েছে তা নাকি জানেন না। এটা কি মানুষ বিশ্বাস করবে ?

ষষ্ঠ প্রশ্ন

নাকতলা, সোনারপুর আর মাদুরদহ সহ আরও অনেক জায়গায় একইদিনে একসঙ্গে (১ ফেব্রুয়ারি) গভীররাতে রেড হয়। সব জায়গায় অফিসিয়াল সিজ়ার হল। কিন্তু, মাদুরদহে গিয়ে ট্রেনটা আটকে গেল ! CID টিম ১ ফেব্রুয়ারি মাদুরদহ পৌঁছায়। কিন্তু, অফিশিয়াল সিজ়ার করল না কেন ? বিল্ডিংয়ের কেয়ারটেকারের কাছ থেকে চাবি নিয়ে সব ফ্ল্যাটে ফ্ল্যাটে ঢুকলেন, থাকলেন, আনঅফিশিয়াল ক্যাম্প করলেন, কিন্তু অফিশিয়াল রেড দেখালেন না। কেন ?

সপ্তম প্রশ্ন

১ ফেব্রুয়ারি, ২ ফেব্রুয়ারি, ৩ ফেব্রুয়ারি ও ৪ ফেব্রুয়ারি এই চাররাত ধরে মাদুরদহের ফ্ল্যাটগুলোর মধ্যে CID টিম কী করছিল ? চারদিন, চাররাত CID অফিসাররা কি একবারও ভারতী ঘোষ বা ওনার স্বামী মিস্টার রাজুকে জানিয়েছেন যে তাঁরা মাদুরদহের ফ্ল্যাটগুলির মধ্যে বসে আছেন ? ৬ ফেব্রুয়ারি যখন তাঁরা অফিশিয়াল সার্চ দেখিয়ে রিকভারি দেখাচ্ছেন তখনও কিন্তু গোপনে ফ্ল্যাটে ঢুকে বসে আছেন বলে ভারতী ঘোষ বা ওনার স্বামী মিস্টার রাজুকে জানাননি। আমার বাড়িতে লোক ঢুকে বসে থাকবে অথচ আমি জানব না ? আমার বাড়িতে রোজ খোঁজাখুঁজি চলবে, লোক ঢুকবে, বেরোবে, আর আমি জানব না ? লুকিয়ে লুকিয়ে রিকভারি করবে আর আমি জানব না ? ধোঁয়াশা ধোঁয়াশা রিকভারি। স্বচ্ছ নয়। কিছুই বোঝা যাচ্ছে না। বারবার বলছেন ভারতী ঘোষের ঘনিষ্ঠ। আরে বাবা, যেখান থেকে রিকভারি হয়েছে তারা ভারতী ঘোষের ঘনিষ্ঠ কী করে জানলেন ? আমি তাদের চিনি বলেছি ? আপনাদের কাছে কোনও প্রমাণ আছে ? আগে সঠিক তথ্যপ্রমাণ দিন। প্রমাণ করুন কে আমার ঘনিষ্ঠ কে নয়। তারপর মিডিয়াকে মিসগাইড করুন। পরে কিন্তু, এটা অনেকদূর যাবে।

অষ্টম প্রশ্ন

একটি মামলা দাসপুরে হয়েছে। মামলাকারী একজন চাউমিন বিক্রেতা না কীসের বিক্রেতা আমি জানি না। তবে, সোনার বিক্রেতা নয়। তবে, কিছু একটা বিক্রি করে ওখানে। নয় চাউমিন, নয় খাবার নাহলে তেলেভাজা। সেই লোকটি নাকি কিছু সোনা বিক্রি করেছিল। তার টাকা পায়নি। টাকা না পাওয়ার জন্য সে কেস করেছে। দেখা গেল অবৈধ সোনা বিক্রি আর টাকা না পাওয়ার কেসটা ধাক্কা খেতে খেতে তোলাবাজির কেসে পরিণত করার চেষ্টা হচ্ছে। CID ঠেলে ঠেলে কেসটাকে যখন তোলাবাজির দিকে নিয়ে যাচ্ছে, তখন কি মনে হল না যে একজন তেলেভাজা বিক্রেতা সোনা পেল কী করে ? সোনা কেনাবেচা করার লাইসেন্স কে দিল ? ওকে তো আগেই ধরা উচিত ছিল। তা না করে এটাকে একটা তোলাবাজির কেসে পরিণত করে “অপারেশন ভারতী ঘোষ” চালু করল CID।

আমার কতগুলি প্রশ্ন আছে

  • ভারতী ঘোষ তোলাবাজি করেছেন এই অভিযোগ কোথায় ?
  • কাকে ধমকিয়ে তোলা তুলেছেন ভারতী ঘোষ ?
  • কে এসে অভিযোগ করেছেন যে, ভারতী ঘোষ আমাকে ধমকিয়ে তোলা তুলেছেন ? তাঁকে সামনে আনুন। নাহলে একটা মিথ্যাকে সত্যি করার যে চেষ্টা করছেন সেটা পারবেন না।

নবম প্রশ্ন

রেডের নামে বিনা সার্চ ওয়ারেন্টে, বিনা FIR, বিনা কাগজপত্র, বিনা কোনও পরিচয়পত্রে CID অফিসাররা বাড়িতে ঢুকে লুটপাট চালিয়েছেন। ফোন কেড়ে নিয়েছেন, কথা বলতে দেননি, উকিল ডাকতে দেননি, আত্মীয়দের ডাকতে দেননি, আটকে রেখেছেন, ঠাকুর ঘর ভেঙেছেন, ঠাকুরকে অপমান করেছেন, মহিলাদের অত্যাচার করেছেন, জিনিসপত্র ভেঙেছেন, অনেক গোপনীয়, ব্যক্তিগত পেনড্রাইভ, ল্যাপটপ, হার্ডডিস্ক, ফাইল, দলিল সব তুলে নিয়ে চলে গেছেন। বাইরে থেকে নিজেদের সাক্ষী নিয়ে এসে সাদা কাগজে সই করিয়ে নিয়ে গেছেন। সিজ়ার লিস্ট-ও দেননি। কী কী নিয়ে গেছেন তার কোনও হিসেব নেই। আমার প্রশ্ন, এটা কি দেশের আইন ? আপনারা কি আইনের মধ্যে থেকে কাজ করেছেন ? বুকে হাত দিয়ে নিজেদের জিজ্ঞেস করুন, যা করেছেন তাতে কি দেশের আইনকে তুলে ধরলেন নাকি কোনও বিশেষ ব্যক্তিকে সন্তুষ্ট করার জন্য করছেন ?

দশম প্রশ্ন

এটা কি জঙ্গলমহল পরিষ্কার আর সুন্দর করে তোলার প্রতিদান ? ছ’বছর ধরে মৃত্যু হাতে নিয়ে দেশে সুরক্ষার জন্য কাজ করে যাওয়ার প্রতিদান ? তাই যদি হয় তাহলে ধন্যবাদ।

এই সংক্রান্ত আরও খবর : তোলাবাজি মামলায় অভিযুক্ত, নোটিস ভারতীকে

শুধু CID নয় ভারতীর অভিযোগের তির শাসকদলের দিকেও। অন্য একটি অডিও বার্তায় তিনি বলেন, “আমি বাংলার মানুষকে জানাতে চাই, শাসকদল তার সমস্ত রাষ্ট্রশক্তি আমার পিছনে লাগিয়ে দিয়েছে। আমার ইমেজ কলঙ্কিত করার চেষ্টা হচ্ছে। যেন-তেন প্রকারে বিপদে ফেলার চেষ্টা হচ্ছে। আপনারা কোনওদিন শুনেছেন যার বাড়ি থেকে টাকা বেরোয় তাকে ধরা হয় না ? CID মাদুরদহের বাড়ি থেকে যে টাকা বের করল সেগুলি তো আমার বাড়ি থেকে বেরোয়নি। কিন্তু, CID তো তা বলেনি। মিথ্যা কথা বলেছে। মিডিয়াকে মিসগাইড করেছে। যার বাড়ি থেকে টাকা বেরোলো তার নাম নাকি কোন চক্রবর্তী। তাকে ধরেনি। তাকে দিয়ে উলটে একটা মিথ্যা অভিযোগ লিখিয়ে নিয়েছে। লিখিয়েছে, আমার স্বামী নাকি তাকে টাকা রাখতে ভয় দেখিয়েছে। আচ্ছা আপনাকে যদি ভয় দেখায় তাহলে আপনি সেদিনই গিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ করলেন না কেন ? CID-তো ওখানে ১ ফেব্রুয়ারি থেকে ঢুকে বসে আছে। তখনই বা জানালেন না কেন।”

এই সংক্রান্ত আরও খবর : ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি

তোলাবাজি মামলায় আজই ভারতী ঘোষের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করে ঘাটাল মহকুমা আদালত। ভারতী ঘনিষ্ঠ পুলিশ অফিসারদের বাড়িতেও চলছে তল্লাশি। আর এরমাঝেই প্রকাশ্যে এল ভারতী ঘোষের অডিও “বোমা”। এখন দেখার, এই প্রশ্নগুলির উত্তর CID বা সরকার কারোর কাছে আছে কি না ?

DISCLAIMER :

ভারতী ঘোষের পাঠানো অডিওবার্তা ঠিক না ভুল তা যাচাই করা হয়নি। ফরেনসিক তদন্ত ছাড়া তা যাচাই করা সম্ভব নয়। তবে, প্রাথমিকভাবে শুনে মনে হয়েছে এই অডিওবার্তা ভারতী ঘোষেরই। আর সেই বার্তার উপর নির্ভর করেই ইনাডু বাংলার এই প্রতিবেদন।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  পুজোর খবর

  MAJOR CITIES