• A
  • A
  • A
"ছেলেদের পড়াশোনা শিখিয়েও চাকরি মেলেনি, তাই চোলাইয়ের ব্যবসা করি"

হুগলি, ১ ডিসেম্বর : "ছেলেদের পড়াশোনো শিখিয়েছি। কিন্তু এখানে কারখানা নেই। যা ছিল বন্ধ হয়ে গেছে। চাকরি নেই। তাই কী করব ? চোলাই তৈরি করেই সংসার চালাই।" এক লহমায় বলে চলল গঙ্গা রায়। কয়েকদিন আগেই শান্তিপুরে বিষমদ খেয়ে মৃত্যু হয়েছে বেশ কয়েকজনের। আর তারপরই রাজ্যজুড়ে চোলাই বন্ধ অভিযানে নেমেছে প্রশাসন। জেলায় জেলায় চালানো হচ্ছে অভিযান। নষ্ট করা হচ্ছে চোলাই সহ চোলাই তৈরির উপকরণও। আর ঠিক তখনই গ্রামবাসীদের মুখে শোনা যাচ্ছে এই কথা।


আজ সকালে আবগারি বিভাগ ও সিঙ্গুর থানার যৌথ উদ্যোগে হুগলির তেলিপুকুর, আজবনগর সহ বিভিন্ন এলাকায় শুরু হয়েছে চোলাই অভিযান। চলছে চোলাই তৈরির ভাটি ভাঙার কাজ। নষ্ট করে দেওয়া হচ্ছে চোলাই তৈরির উপকরণও। যাতে আবার কেউ নতুন করে চোলাই তৈরি করতে না পারে। দুদিন আগেও সিঙ্গুরের বেশ কয়েকটি এলাকায় চোলাই অভিযান চালানো হয়েছিল। নষ্ট করা হয়েছিল কয়েক হাজার লিটার চোলাই মদ।
গ্রামবাসী গঙ্গা রায়


ইতিমধ্যেই কয়েক জায়গায় চোলাই অভিযান চালাতে গিয়ে গ্রামবাসীর ক্ষোভের মুখেও পড়তে হয়েছে আবগারি বিভাগের কর্মী ও পুলিশকে। আজও আজবনগর এলাকায় গ্রামবাসীর ক্ষোভের মুখে পড়েন তাঁরা।

এলাকাবাসীরা বলছে, আগে এই এলাকায় বাঁশ দিয়ে বিভিন্ন সামগ্রী তৈরি করা হত। তবে এখন বাজার ছেয়ে গেছে প্লাস্টিকের সামগ্রীতে। বন্ধ হয়ে গেছে ব্যবসা। এলাকার বহু যুবক শিক্ষিত হয়েও বেকার। নেই কোনও কারখানা। নেই কোনও সরকারি সুযোগ সুবিধাও। সংসার চালাতে গেলে দরকার টাকা। তাই এই চোলাই ব্যবসা শুরু করেছে তারা। অনেকেই বলছে, "এবার কী করব? পেট চালানোই তো দায় হয়ে গেল। পুলিশ তো সব নষ্ট করে দিয়েছে। আমাদের কথা একবারও ভাবল না। না খেতে পেয়ে মরতে হবে।" সব শুনে চুপ করে চলে গেলেন আবগারি বিভাগের কর্মীরা।



CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  আয়না ২০১৮

  MAJOR CITIES