• A
  • A
  • A
চতুর্থ বিয়ের প্রস্তুতি ? তৃতীয় স্ত্রীর অস্বাভাবিক মৃত্যুতে সন্দেহ প্রতিবেশীদের

বালুরঘাট, ১০ জুন : প্রথম দুই স্ত্রীকে নির্যাতন করে আগেই বাড়ি থেকে তাড়িয়েছিলেন। কিছুদিন পর ফের নতুন করে সংসার পাতেন। এবার তৃতীয় স্ত্রীকে পিটিয়ে খুনের অভিযোগ উঠল এক সরকারি আধিকারিকের বিরুদ্ধে। চতুর্থবার বিয়ের পিঁড়িতে বসার জন্যই তিনি সহধর্মিণীকে খুন করেছেন বলে অনুমান। শুধু কী তাই, স্ত্রীর মৃত্যু যাতে পথদুর্ঘটনায় হয়েছে বলে মনে হয় সেই চেষ্টায় কোনও খামতি রাখেননি অভিযুক্ত। এমন অভিযোগই উঠছে। যদিও স্থানীয়দের সন্দেহ হচ্ছে বুঝতে পেরে সুযোগমতো গা ঢাকা দেন অভিযুক্ত দিবাকর ঘোষ। খোঁজ নেই পরিবারের অন্য সদস্যদেরও। মৃতের নামে অনন্যা রায় (ঘোষ)। বয়স আনুমানিক ৩২। বালুরঘাট থানার পতিরাম নিচাবন্দর এলাকার ঘটনা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থানে আসে পতিরাম ফাঁড়ির পুলিশ। তদন্ত শুরু হয়েছে। পাশাপাশি মৃতের মেয়ে কোথায় রয়েছে তার খোঁজ চালাচ্ছে পুলিশ।

ছবি-স্ত্রীর সঙ্গে দিবাকর ঘোষ, ভিডিওয়-স্থানীয় বাসিন্দার বক্তব্য


স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, দিবাকর ঘোষ ওরফে পান্নার আগে দু’বার বিয়ে হয়েছিল। কেউ বলে, তাঁদের সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়ে গেছে। আবার কেউ বলে, তাঁদের মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে বাড়ি থেকে তাড়ানো হয়েছে। বধূ নির্যাতনের ঘটনায় নাকি একবার চাকরি থেকে সাসপেন্ডও হয়েছেন দিবাকর। যেতে হয়েছে শ্রীঘরেও। তাতেও অবশ্য বোধোদয় হয়নি। জেল থেকে ছাড়া পেয়ে ফের বিয়ে করেন দিবাকর। কলকাতার মেয়ে অনন্যাকে বিয়ে করেন। তাঁদের একটি মেয়ে হয়। যদিও তৃতীয় এই বিয়ে নিয়ে পাড়াপড়শিদের কাছে কোনও খবর ছিল না। কখন এই বিয়ে হল, কোথায় হল কিছুই জানা নেই তাঁদের। কারণ, পাড়াপড়শিদের সঙ্গে সেভাবে মিশতেন না দিবাকর। বর্তমানে গঙ্গারামপুর আবগারি দপ্তরে কর্মরত তিনি।



পরিবারের সঙ্গে দিবাকর
ঘটনার সূত্রপাত গতরাতে। দিবাকরের বাড়ি থেকে এক মহিলার চিৎকার শুনতে পান স্থানীয়রা। যদিও দিবাকরের সঙ্গে কারও সখ্যতা না থাকায় কেউ আর এগিয়ে এসে বিষয়টি দেখেননি। খারাপ কিছুর সন্দেহও করেননি। এরপর আজ সকালে বাড়ির সামনে রক্তাক্ত অবস্থায় অনন্যাকে দেখতে পান স্থানীয়রা। কী হয়েছে দিবাকরের কাছে জানতে চান তাঁরা। অভিযুক্ত তাঁদের জানান, চারচাকা গাড়িটি বের করার সময় অসতর্কতাবশত স্ত্রী চাপা পড়ে গেছেন। স্থানীয়রা সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে উদ্ধার করে বালুরঘাট জেলা হাসপাতালে ভর্তি করেন। হাসপাতালেই মৃত্যু হয় অনন্যার।


দিবাকরের বাড়ির সামনে স্থানীয়দের জটলা
তবে ঘটনার কিছুক্ষণের মধ্যেই বাড়ির ভিতরে থাকা প্রাইভেট গাড়িতে এবং বাগানে রক্তের দাগ দেখতে পান স্থানীয়রা। তাঁদের সন্দেহ হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থানে আসেন বালুরঘাট থানার IC সঞ্জয় ঘোষ সহ পতিরাম ফাঁড়ির পুলিশ। ততক্ষণে অবশ্য সুযোগ বুঝে চম্পট দিয়েছেন দিবাকর। রক্তের দাগ দেখে পুলিশের অনুমান, ভারী কিছু দিয়ে অনন্যার মাথায় ও মুখে আঘাত করা হয়েছে।

স্থানীয় বাসিন্দা পঙ্কজ দাস জানান, ওই ব্যক্তি বরাবর কলকাতার দিকের মেয়েকে বিয়ে করতেন। খুন হতে পারে আশঙ্কা করে প্রথম স্ত্রী হয়ত পালিয়ে গিয়েছিলেন। এরপর আর একজনকে বিয়ে করেন। তাঁকেও নির্যাতন করতেন। ঘটনায় তাঁকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রীর সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদ হয়। তিনি চলে যান। এরপর তৃতীয় বিয়ে করেন। বিয়ের পর থেকে তৃতীয় স্ত্রীর উপরও অত্যাচার চালাতেন। গতকালই বাপেরবাড়ি থেকে পতিরাম আসেন এই স্ত্রী। আর গতকালই এই ঘটনা ঘটে। তাঁর অভিযোগ, পিটিয়ে স্ত্রীকে খুন করে পথদুর্ঘটনা বলে স্থানীয়দের জানান দিবাকর। তাঁর অনুমান, চতুর্থ বিয়ের পরিকল্পনা করেছিলেন দিবাকর। পুলিশ পুরো ঘটনা খতিয়ে দেখে ওকে উপযুক্ত শাস্তি দিক।

বালুরঘাট থানার IC সঞ্জয় ঘোষ জানিয়েছেন, গাড়ি ও অন্য সামগ্রী উদ্ধার করা হয়েছে। ঘটনা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। অভিযুক্তের খোঁজ চলছে।

CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  পুজোর খবর

  MAJOR CITIES