• A
  • A
  • A
সুপ্রিম কোর্ট ইস্যুতে সমস্যা মেটাতে প্রতিনিধি দল গঠন বার কাউন্সিলের

দিল্লি, ১৩ জানুয়ারি : সুপ্রিম কোর্ট ইস্যুতে সমস্যা মেটানোর জন্য আজ বৈঠক করে সাত সদস্যর এক প্রতিনিধি দল গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বার কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়া। সুপ্রিম কোর্টের চার বিচারপতি গতকাল সাংবাদিক বৈঠক করে আদালতের অভ্যন্তরীণ কাজকর্মের সমালোচনা করেন এবং দেশের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দেন। বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান মানান কুমার মিশ্র আজ জানিয়েছেন, সমস্যা মেটানোর জন্য সাত সদস্যর এক প্রতিনিধি দল আগামীকাল দেশের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র এবং অভিযোগকারী চার বিচারপতির সঙ্গে দেখা করবেন। সুপ্রিম কোর্টের অন্দরের কাজকর্ম নিয়ে যে বিতর্ক ছড়িয়েছে, তা দ্রুত মিটে যাবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন অ্যাটর্নি জেনেরাল কে কে বেণুগোপাল। আজ সকালে তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “আশা করছি সবকিছুই দ্রুত ভালোয় ভালোয় মিটে যাবে।”

বার কাউন্সিল অফ ইন্ডিয়ার চেয়ারম্যান মানান কুমার মিশ্র


গতকাল সুপ্রিম কোর্টের চার বিচারপতি জে চেলামেশ্বর, রঞ্জন গোগোই, মদন লুকুর ও কুরিয়েন যোসেফ সাংবাদিক বৈঠক করেন। সেখানে তাঁরা অভিযোগ করেছিলেন, সুপ্রিম কোর্টের অন্দরে কাজকর্ম ঠিকঠাক চলছে না। অনেক ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ মামলাগুলির বিচারভার পছন্দের বিচারপতিদের দেওয়া হচ্ছে। সংবেদনশীল মামলাগুলির বিচারের দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে জুনিয়র বিচারপতিদের। চার বিচারপতির অভিযোগের মূল লক্ষ্য ছিল দেশের প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র। চার বিচারপতি বলেন, “আমরা সমস্যাগুলি নিয়ে প্রধান বিচারপতিকে একাধিকবার জানিয়েছি। কিন্তু কোনও কাজ হয়নি।”


বার কাউন্সিলের চেয়ারম্যান আজ জানান, সাত সদস্যর প্রতিনিধি দলটি আগামীকাল প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্র এবং অভিযোগকারী চার বিচারপতির সঙ্গে আলাদা করে দেখা করবেন এবং যে সমস্যা তৈরি হয়েছে তা নিজেদের মধ্যে আলোচনার মাধ্যমে মিটিয়ে ফেলার জন্য তাঁদের অনুরোধ করা হবে।

চার বিচারপতির সাংবাদিক বৈঠক করার ঘটনাটি ভালোভাবে নেয়নি বার কাউন্সিল। চেয়ারম্যান বলেন, “রোস্টার নিয়ে মনোমালিন্যের জেরে যেভাবে চার বিচারপতি সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে বসলেন, তা খুবই দুঃখজনক। বিষয়টি নিজেদের মধ্যে আলোচনা করেই মেটানো যেত। তাঁরা বিষয়টি বার কাউন্সিলকেও জানাতে পারতেন এবং সাহায্য চাইতে পারতেন। তা না করে যেভাবে তাঁরা বিষয়টি জনসমক্ষে নিয়ে গেলেন, তাতে বিচারব্যবস্থা এবং গণতন্ত্র দুর্বল হবে। এছাড়া ওই চার বিচারপতির এই আচরণ রাহুল গান্ধি এবং অন্য রাজনৈতিক দলগুলিকে বিচার ব্যবস্থা নিয়ে প্রশ্ন তোলার সুযোগ করে দিয়েছে, যা অনভিপ্রেত। আমি রাহুল গান্ধি এবং অন্য রাজনৈতিক দলের নেতাদের অনুরোধ করব বিষয়টি নিয়ে রাজনীতি করবেন না। তবে গোটা বিষয়টিতে কেন্দ্রীয় সরকারের ভূমিকা প্রশংসা দাবি রাখে।” উল্লেখ্য, গতকাল প্রধানমন্ত্রী এবং আইনমন্ত্রী বলেন, বিষয়টি বিচারবিভাগের অভ্যন্তরীণ বিষয় এবং সরকার তাতে হস্তক্ষেপ করবে না।
সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের প্রেসিডেন্ট বিকাশ সিং বলেন, “ওই চার বিচারপতির সাংবাদিক বৈঠক পরিকল্পনাহীন। তাঁরা প্রেসের কাছে গেলেও কারও বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট কোনও অভিযোগ করেননি। তাঁদের বক্তব্য সাধারণ মানুষের মধ্যে শুধু নানা সন্দেহের জন্ম দিয়েছে। এতে বিচারব্যবস্থার কোনও উদ্দেশ্য পূরণ হয়নি।”

অ্যাটর্নি জেনেরাল নিজেও চার বিচারপতির সাংবাদিক বৈঠক নিয়ে গতকাল অসন্তোষ প্রকাশ করেছিলেন। তিনি সাংবাদিকদের বলেছিলেন, “এমনটা না হওয়াই বাঞ্ছনীয় ছিল।” তবে সমস্যা দ্রুত মিটে যাবে বলে আজ তিনি আশা প্রকাশ করেন।

এই সংক্রান্ত আরও খবর :

সুপ্রিম কোর্ট ইস্যুতে আজ বৈঠক করবে বার কাউন্সিল

সাংবাদিক বৈঠক করে সুপ্রিম কোর্টের কাজকর্ম নিয়ে ক্ষোভপ্রকাশ ৪...

আমরা গভীর উদ্বিগ্ন, সুপ্রিম কোর্টের চার বিচারপতির বক্তব্যের পর টুইট...

উচ্চপর্যায়ের তদন্ত প্রয়োজন, দেশের প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ...






CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  জনমত পঞ্চমত ২০১৮

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  MAJOR CITIES