• A
  • A
  • A
আজ বৈঠকে ট্রাম্প ও কিম

সিঙ্গাপুর, ১২ জুন : একজন পাগলাটে বুড়ো বললে আরেকজন পালটা হিসেবে বলেছেন লিটল রকেট ম্যান। দীর্ঘদিন ধরেই চলেছে হুমকি-পালটা হুমকি। এবার তাঁরাই বসবেন মুখোমুখি। হাসিমুখে করবেন করমর্দন। আর অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনের মধ্যে ঐতিহাসিক বৈঠকের সাক্ষী থাকবে সিঙ্গাপুর।


কয়েক মাস আগে পর্যন্ত দু’জনে একে অপরকে হুমকি দিতেন। কিন্তু, চলতি বছরের শুরু থেকেই একটু একটু করে পরিস্থিতি বদলাতে থাকে। কিমের সঙ্গে তাঁর কথা বলতে আপত্তি নেই বলে জানিয়ে দেন ট্রাম্প। দুই কোরিয়ার বৈঠকের পর থেকেই পরিস্থিতি আরও বদলায়। উত্তর কোরিয়ায় আটকে থাকা তিন অ্যামেরিকান নাগরিকের মুক্তির পর সম্পর্ক স্বাভাবিক হওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া যায়। এরপরই ঘোষণা হয় বৈঠকের দিন। ঠিক হয় ১২ জুন হবে বৈঠক।


ক্ষমতায় আসার পর থেকেই যিনি নিয়মিত অ্যামেরিকাকে হুমকি দিতেন সেই কিম হঠাৎ কেন সুর নরম করলেন ? আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞদের একাংশর মতে, ক্রমশ একা হয়ে পড়ছিল উত্তর কোরিয়া। আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা বহাল হওয়ায় অর্থনৈতিক চাপ বাড়ছিল। তাই, দম্ভ ছেড়ে চিরশত্রু দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে বৈঠক করেছেন কিম। এর মাঝেই প্রতিশ্রুতিমতো পুনগেরি-রি পারমাণবিক পরীক্ষাকেন্দ্র ধ্বংস করেন। চেষ্টা করেন হোয়াইট হাউজ়ের “ভুল ধারণা” ভাঙার। বোঝানোর চেষ্টা করেন পরমাণু নিরস্ত্রীকরণে তিনি সত্যিই আগ্রহী।


সিঙ্গাপুরে কিম জং উন
এত সহজে কি বরফ গলবে, তা নিয়ে অনেকেরই আশঙ্কা ছিল। আর তা সত্যি করে হঠাৎই গত মাসের শেষের দিকে বৈঠক বাতিল করার কথা ঘোষণা করেন অ্যামেরিকার প্রেসিডেন্ট। কারণ হিসেবে চিঠিতে ট্রাম্প লেখেন, “সম্প্রতি আপনাদের বিবৃতিতে শত্রুতার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। তাই এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হচ্ছি।” কেন এই সিদ্ধান্ত ? কারণ এর কয়েকদিন আগেই উত্তর কোরিয়ার বিদেশ মন্ত্রী বলেছিলেন “অ্যামেরিকা যদি চায় আমরা শান্তি আলোচনায় বসতেই পারি। কিন্তু, পরমাণু যুদ্ধ চাইলে তাতেও রাজি।” কিন্তু, কেন এই কড়া বার্তা ? কারণ কয়েকদিন আগেই দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে যৌথ সেনা মহড়া করে অ্যামেরিকা। যা ভালোভাবে নেননি কিম।

তবে তখনও সব শেষ হয়নি। এমাসের শুরুতেই উত্তর কোরিয়ার শাসক দল ওয়ার্কার্স পার্টির সেন্ট্রাল কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান কিম ইয়ং ছোল হোয়াইট হাউজ়ে যান। শাসক কিম জং উনের একটি চিঠি নিয়ে ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করেন। প্রায় দেড় ঘণ্টা বৈঠক শেষে কাটে জটিলতা। জানানো হয়, বৈঠক হবে ১২ জুনই।


সিঙ্গাপুরের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ডোনাল্ড ট্রাম্প

এবার আর বাধা পড়েনি। নির্ধারিত সূচি অনুযায়ী ইতিমধ্যেই সিঙ্গাপুরে পৌঁছে গেছেন ট্রাম্প ও কিম। আর কয়েক ঘণ্টা পরই মুখোমুখি হচ্ছেন তাঁরা। নিঃসন্দেহে হাসিমুখেই।



CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  পুজোর খবর

  MAJOR CITIES