• A
  • A
  • A
দেখে নিন আপনার চুলের জন্য প্রয়োজনীয় তেল কোনটি?

বসন্তের শেষ। গ্রীষ্মের শুরু। অর্থাৎ ঋতু পরিবর্তনের সময়। এই সময় ত্বকের নানা সমস্যা দেখা দেয়। তার পাশাপাশি চুলেরও নানা সমস্যা দেখা যায়। খুশকি, চুল পড়া ও চুলের শুষ্ক হয়ে যাওয়া সহ একাধিক সমস্যা দেখা দেয়। তাই এই সময় চুলের একটু বাড়তি যত্নের জন্য বিভিন্ন ‘এসেনশিয়াল অয়েল’ ব্যবহার করতে পারেন। তাই জেনে নিন কোন তেলের কী গুণ -


অলিভ অয়েল:


অলিভ অয়েল যেমন রান্নার কাজে ব্যবহৃত হয় তেমনই চুলেরও নানা সমস্যার সমাধান করে অলিভ অয়েল। চুলের ডগা ফাটা, উস্কো খুস্কো চুলকে ঠিক করা, চুলের রুক্ষতা দূর করে এই তেল। রুক্ষ চুলের জন্য অলিভ অয়েল দিয়ে একটি হেয়ার মাস্ক তৈরি করে নিন। একটি ডিম, খানিকটা মধু ও ৪ চামচ অলিভ অয়েল ভালোভাবে একটি পাত্রে মিশিয়ে নিন। এটি চুলে ৩০ মিনিট লাগিয়ে রাখুন। তারপর শ্যাম্পু করে ভালোভাবে কন্ডিশনার লাগিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। অলিভ অয়েল গরম করে কখনই মাথায় লাগাবেন না।


তিলের তেল:

তিলের তেল আছে ওমেগা থ্রি, ওমেগা সিক্স এবং ওমেগা নাইন। যা অকালেই চুল পেকে যাওয়া বা ধূসর চুলের সমস্যা সমাধান করে। এছাড়াও চুল ঘন ও ঝলমলে করতে তিলের তেল খুব উপকারী। এই তেলে রয়েছে অ্যান্টি-ব্যক্টেরিয়াল উপাদান। যা মাথার ত্বককে বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়ার হাত থেকে রক্ষা করে।


আমন্ড অয়েল:

আমন্ড তেলে আছে ওমেগা থ্রি, ফ্যাটি অ্যাসিড, ভিটামিন E, ফসফলিপিডস এবং ম্যাগনেশিয়াম। যা চুল ভাঙা, চুল পড়ার সমাধান করে। এর পাশাপাশি চুল মসৃণ ও চুলের উজ্জ্বলভাব ফিরিয়ে আনতেও আমন্ড অয়েল সাহায্য করে।

নারকেল তেল

চুলের যত্নে যে তেলের কথা আমাদের প্রথমে মনে আসে তা হল নারকেল তেল। নারকেল তেল ভিটামিন E সমৃদ্ধ যা চুলের গোড়া শক্ত করতে সাহায্য করে। চুলকে ময়েশ্চারাইজা়রের জোগান দেয়। তাই নারকেল তেল চুলের যত্নে আবশ্যক।


ল্যাভেন্ডার অয়েল:

ল্যাভেন্ডার অয়েল অ্যান্টিব্যাক্টেরিয়াল এবং অ্যান্টি-ইনফ্লেমেটরি উপাদানের জন্য উপকারী। যা মাথার ত্বককে শুষ্ক হওয়া, মাথার ত্বকে আর্দ্রতা ফিরিয়ে আনতে সাহায্য করে। পাশাপাশি এই তেল ব্যবহারের ফলে অনিদ্রা দূর হয়। যে কোনও তেলের সঙ্গে কয়েক ফোঁটা ল্যাভেন্ডার তেল মিশিয়ে ব্যবহার করতে পারেন।


সূর্যমুখী তেল

সান ফ্লাওয়ার অয়েল আমাদের চুলকে ময়েশ্চারাইজ় ও নারিশিং করে। পাশাপাশি এই তেল চুলে অক্সিডেন্টের যোগান দেয়। তৈলাক্ত চুলের জন্য এই তেল খুব উপযোগী। হালকা হওয়ার কারণে এই তেল দিয়ে মাথা ম্যাসাজ করলে, চুলে কোন ও চিটচিটেভাব আসে না। তবে কখনই চুলে তেল লাগিয়ে ঘুমিয়ে পড়বেন না। এতে চুলের গোড়া নরম হয়ে চুল আরও বেশি পড়তে পারে।

অ্যাভোকাডো তেল

অ্যাভোকাডো তেলে ভিটামিন A ও B আছে। যা চুলকে ময়েশ্চারাইজ়িং করে ও চুল ভঙ্গুর হওয়া ও ক্ষতিগ্রস্ত হওয়া থেকে রক্ষা করে।


CLOSE COMMENT

ADD COMMENT

To read stories offline: Download Eenaduindia app.

SECTIONS:

  হোম

  রাজ্য

  দেশ

  বিদেশ

  ক্রাইম

  খেলা

  বিনোদন-E

  ইন্দ্রধনু

  অনন্যা

  গ্যালারি

  ভ্রমণ

  জনমত পঞ্চমত ২০১৮

  ଓଡିଆ ନ୍ୟୁଜ

  MAJOR CITIES